আমার বাবা শুধু বাবা না, আমার বন্ধু ও বটে। কিন্তু এই বন্ধুত্বের কোনো চাওয়া পাওয়া নাই। আছে শুধু একতরফা মনখুশি চাওয়া পাওয়া। আমার বাবা কখনোই কিছু নিজের জন্য চান নাই। বরং তার এই বন্ধুত্বের পুরাটাই তিনি আমাকে শপে দিছেন। আমার বাবা এমনই একজন, যাকে আমি যখন যা খুশি বলতে পেরেছি, তিনি একাগ্র চিত্তে আমার সবকথা শুনেও গেছেন। সবশুনে উপদেশ ও দিয়েছেন, আদেশ ও দিয়েছেন। আমার বাবাকে আমি অনেক ভয় পাই, এটা সত্য। এই ভয়ের জন্যই কখনো বুঝে উঠতে পারি নাই, তিনি আসলে আমার সবথেকে ভাল বন্ধু। আজ যখন বাবাকে হাসপাতালের বেড এ মূমুর্ষূ অবস্থায় দেখলাম, তখন মনে আসলো এই ব্যক্তিটিই আমার প্রকৃত বন্ধু যে কখনো আমার খারাপ ভাবে নাই। তার শাসন এর মাঝেও তার আদর লুকায়িত ছিল, তার আদরের মাঝেও শাসন ছিল। যখনই কোনো বাধা এর সম্মুখীন হয়েছি, বাবাকে সবসময় বটবৃক্ষের মত মাথার উপর পেয়েছি, কোনো কিছু না ভেবেই কাজ করে গেছি মনের অজান্তে। কিন্তু আজ আমার সেই বটবৃক্ষটাও নড়বড় করছে। একটা অজানা হাহাকার কাজ করছে আশেপাশে। উপলব্ধি নামক শব্দটার সাথে পরিচিত হতে অনেক দেরি করে ফেলেছি, এতটাই দেরি হয়েছে যে জানি না, আমার এই হাহাকার আমার বাবা আর কখনো পড়তে পারবেন কিনা। বাবাকে বলা হয়ে উঠে নাই, আব্বু আমি এখনো তোমার সেই বাবু ই আছি, যে গেট ধরে দাড়ায় আছে কখন তুমি আসবে..

Spread the love